৭ ফুট লম্বা ছড়ি, ধরেছে তিন হাজার কলা

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

দুই পাশে দুই বাঁশ দিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে কলা গাছটিকে। উপরে সেট করা হয়েছে সিসি ক্যামেরা। যেটা প্রতিনিয়ত পাহাড়া দিচ্ছে গাছটিকে। এত আয়োজন মাত্র এক ছড়ি কলার জন্য। তবে ওই ছড়িতে কলা রয়েছে প্রায় তিন হাজার! অবিশ্বাস্য হলেও এমন দৃশ্য দেখা গেছে গাজীপুরে।

গাছটি দাঁড়িয়ে আছে জেলার কাশিমপুরের লতিফপুর এলাকার একটি বিনোদন পার্কে। আর এই গাছ দেখতে প্রতিদিন এই পার্কে ভিড় করছে শত শত উৎসুক জনতা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও রীতিমতো ভাইরাল এই কলা গাছটি।

পার্ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, দুই বছর আগে মনপুরা পার্কে ঘুরতে আসে এক দর্শনার্থী। তিনিই উপহার হিসেবে দিয়েছিলেন এই গাছের চারাটি। পরে চারাটি পার্কের ভেতরেই রোপণ করে কর্তৃপক্ষ। ধীরে ধীরে বড় হতে থাকে চারাটি। এক সময় গাছটি বড় হয়ে কলা ধরে। সেখান থেকেই নতুন করে জন্ম নেয় একটি কলার চারা। সেটিও বড় হয় আর কলাও ধরে। পরে গত ৬ মাস আগে গাছটি থেকে একটি কলার ছড়ি বের হয়। ছড়িটিও বড় হতে থাকে। বড় হতে হতে প্রায় ৭ ফুট লম্বা হয়ে মাটিতে ছুঁয়ে যায় কলার ছড়িটি। যেখানে ধরেছে কয়েক হাজার কলা।

সরেজমিনে দেখা যায়, ছড়ির উপরের অংশের কিছু কলা খাওয়ার উপযোগী। তবে নিচের কলাগুলো একেবারেই ছোট। যা খাওয়ার অনুপযোগী।

কলা খেয়েও দেখেছেন যমুনা টেলিভিশনের এই প্রতিবেদক। জানিয়েছেন, কলাগুলো খেতে খুবই মিষ্টি। স্বাদ চম্পা কলার মতো। এ ধরনের কলার ছড়ি সচরাচর দেখা যায় না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মনপুরা পার্কের ব্যবস্থাপক জায়েদ হাসান জানান, এটি হাজারীকা জাতের কলা গাছ। কলার ছড়ি দেখতে অনেকেই দূর-দূরান্ত থেকে পার্কে আসছেন বলেও জানান তিনি।

গাজীপুর সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হাসিবুল হাসান জানান, কলার ছড়িটা দেখতে আমরা সরেজমিনে গিয়েছিলাম। উপরের কলাগুলো খাওয়ার উপযোগী। তবে, নিচে আরও হচ্ছে।