সংসদ নির্বাচনে বিজয়ীদের গেজেট প্রকাশ

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে বিজয়ীদের গেজেট (প্রজ্ঞাপন) প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারি) সংবাদিকদের এ তথ্য জানান ইসির জনসংযোগ পরিচালক মো. শরীফুল আলম।

এর আগে, দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর জানান, ২৯৮টি আসনের ভোটরে ফলাফল মিলিয়ে দেখা হয়েছে, যাচাইবাছাই করা হয়েছে। সব ঠিক আছে। আজ গেজেট প্রকাশের অনুমোদন দিয়ে তা বিজি প্রেসে পাঠানো হয়েছে।

এই ২৯৮টি আসনে নির্বাচিতদের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে গেজেটে। এরমধ্যে মঙ্গলবার দুপুরের শেষ দিকে হাইকোর্ট আদেশ দেন, ঢাকা-৪ আসনের ফল স্থগিত করতে। একইসঙ্গে এ আসনের ১৮টি কেন্দ্রে ভোটে অনিয়মের অভিযোগ ১০ দিনের মধ্যে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত স্বতন্ত্র প্রার্থী আওলাদ হোসেনকে বিজয়ী ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ থেকে বিরত থাকতে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) নির্দেশ দেয়া হয়।

মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারি) বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমান ও বিচারপতি মো. বশির উল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। নৌকার প্রার্থী অ্যাডভোকেট সানজিদা খানমের রিটের শুনানি নিয়ে আদালত এ আদেশ দেন।

তবে এর আগেই গেজেট প্রকাশ সংক্রান্ত কাজ শেষ করে ইসি। এই আসনের বিষয়ে এখনও ইসির বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

চব্বিশের ভোটে জয়ীরা কাল শপথ গ্রহণ করবেন। সকাল ১০টায় জাতীয় সংসদে তাদের শপথ বাক্য পাঠ করানো হবে। কিন্তু জাতীয় পার্টির নির্বাচিতরা কাল শপথ নিচ্ছে না বলে জানিয়েছে দলটি।

উল্লেখ্য, সংসদ নির্বাচনে কেউ নির্বাচিত হওয়ার পর সংসদের প্রথম বৈঠকের তারিখ থেকে ৯০ দিনের মধ্যে শপথ না নিলে তার আসন শূন্য হবে। তবে এই ৯০ দিনের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে স্পিকার যথার্থ কারণে তা বাড়াতে পারবেন।

এবারের ভোটে ২৯৯টি আসনে ভোটগ্রহণ করা হয়। নওগাঁ-২ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মৃত্যুবরণ করায় সেখানে ভোট স্থগিত করা হয়। পরে আসনটিতে ভোটের জন্য নতুন করে তফসিলও দেয়া হয়েছে। আগামী ১৩ ফেব্রুয়ারি ওই আসনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আর ময়মনসিংহ-৩ আসনে অনিয়মে একটি কেন্দ্রে ভোট বন্ধ করায় ফলাফল স্থগিত রাখা হয়েছে।

গত রোববার (৭ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এই ভোটে ২২৪টি আসন পেয়েছে নৌকার প্রার্থীরা। জাতীয় পার্টি ১১টি, কল্যাণ পার্টি ১টি আসন পেয়েছে। স্বতন্ত্র প্রার্থীরা পেয়েছেন ৬২টি আসন।

উল্লেখ্য, নৌকা নিয়ে বিজয়ীদের মধ্য দুইজন আওয়ামী লীগের নয়। ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বরিশাল-২ এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) রেজাউল করিম তানসেন বগুড়া-৪ আসনে নৌকা মার্কা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়ী হয়।